Spread the love


সালথা প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের সালথা উপজেলার বিভাগদী উচ্চ বিদ্যালয়ের লক্ষাধিক টাকার গাছ বিক্রি করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে, বিদ্যালয়ের সভাপতি এ কেএম রওশন ফকির ও প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিমের বিরুদ্ধে।
জানাগেছে, বিদ্যালয়ের পিছনে ছাত্র-ছাত্রীদের রোপনকরা প্রায় ৫০টি মেহগনি গাছের মধ্যে গত সোমবার (২৪জুন) ৬টি বড় ধরনের গাছ কেটে বিক্রি করে দিয়েছে বিদ্যালয় কতৃপক্ষ। কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের যোগশাজসে এই গাছ কাটা হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন স্থানীয়রা। ইউএনও সাহেবের অনুমোদন ব্যতীত কর্তনকৃত ৬ টি মেহগিনি গাছের দাম কমপক্ষে দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ৬টি গাছের গুড়ি ডালপালা ও পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম কে বিদ্যালয়ে পাওয়া যায়নি, সহকারী শিক্ষকরা উপস্থিত থাকলেও তারা এ বিষয় কিছু বলতে নারাজ । প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে না থাকায় তার মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে গাছ কাটা ও বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিয়ম মেনেই গাছ কাটা হয়েছে। তবে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির রেজুলেশন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অনুমোদন দেখতে চাইলে তিনি তা এখন দেখাতে পারবেন না, এবং পরে এক সময় দেখিয়ে দিবেন বলে তিনি জানান। অপরদিকে বিদ্যালয়ের সভাপতি একেম রওশন ফকিরকে না পেয়ে তারও মোবাইল ফোনে কথা হয়। তিনি বলেন, গাছ কাটা হয়েছে আমি শুনেছি, তবে রেজুলেশন করার কথা প্রধান শিক্ষকের, করেছে কি না তা আমার জানা নেই। স্থানীয়রা বলছেন ভিন্ন কথা, অদক্ষ সভাপতি স্কুলে কোন শিক্ষক আসলো, আর কোন শিক্ষক আসলো না তা তিনি দেখভাল করেন না। কমিটির অন্যন্য সদস্যদের সাথে নেই কোন যোগাযোগ। সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক মিলে অনিয়মের সব কিছু করেন। কমিটির অন্যন্য সদস্যদের কোন মতামতই নেওয়া হয় না। বিদ্যালয়ের এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, রওশন ফকির সভাপতি হওয়ার পর থেকে স্কুলের শিক্ষার ভালো নেই। গত দুই বছর কোন পরীক্ষায়ই ভালো রেজাল্ট পাওয়া য়ায়নি।। কয়েকজন অভিভাবক বলেন, বিভাগদী উচ্চ বিদ্যালয়টি বহু পুরানো এর সুনাম ছিলো এক সময়, বর্তমানে অব্যবস্থাপনার কারনে বিদ্যালয়ের অবস্থা খারাপ। বিদ্যালয় ও শিক্ষার্থীদের মঙ্গলের জন্য দক্ষ কমিটি দরকার।
এদিকে উপজেলা বন কর্মকর্তা মো: তোরাব হোসেন জানান, কর্তনকৃত সিজকরা হয়েছে। গাছগুলি আজ (৪ জুলাই) দুপুর ২ টার ভেতরে উপজেলায় আনা হবে।


Spread the love