Spread the love

বোয়ালমারী প্রতিনিধিঃ সাংবাদিক ও প্রফেসর পরিচয় প্রদানকারী ইব্রাহিম শেখের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ এনে মঙ্গলবার (০৯.০৭.১৯) দুপুর ১২টায় ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌরসদরের ডাকবাংলো চত্বরে সংবাদ সম্মেলন ও তার বিচারের দাবিতে ডাকবাংলো রোডে মানববন্ধন করেছেন উপজেলা আ’লীগের সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. এনামুল হক। এরপরই দুপুর ২টায় ইব্রাহিম শেখ কিছু লোকজন নিয়ে এনামুল হকের বিরুদ্ধে উপজেলা পরিষদের সামনে স্টেশন রোডে পাল্টা মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। উল্লেখ্য ইব্রাহিম ও এনামুল হক গুনবহা ইউনিয়নের ফেলাননগর গ্রামের বাসিন্দা।
সংবাদ সম্মেলনে এনামুল হক তার লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করেন, ফেলাননগর গ্রামের আক্তার শেখের ছেলে ইব্রাহিম সাংবাদিক ও প্রফেসর পরিচয়ে গ্রামবাসির কাছ থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ ও মিটার দেওয়ার নামে কমপক্ষে লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। যারা টাকা দিতে অপারগকতা প্রকাশ করে তাদেরকে মারধর ও হুমকি প্রদান করে। বিভিন্ন সময় প্রশাসনের নাম ব্যবহার করে এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ফেলাননগর গ্রামের ৩নং ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি আব্দুল ওহাব শেখ, সাধারণ সম্পাদক মফিজ শেখ, ৩ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মাসুদুর রহমান, সাবেক ইউপি সদস্য এনায়েত, বিদ্যুৎ নেওয়ার জন্য ইব্রাহিমকে টাকা দিয়েছে রেজাউল শেখ, সেন্টু মিয়া, মনির শেখসহ দুই শতাধিক গ্রামবাসি। পরে ইব্রাহিমের বিচার চেয়ে তারা ডাকবাংলো রোডে মানববন্ধন কমসূচী পালন করে। এ ঘটনায় ফেলাননগর গ্রামবাসীর পক্ষে এনামুল হক ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার ফরিদপুর জেলা পুলিশ সুপার ও বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
অপরদিকে ইব্রাহিম শেখ কিছু লোক নিয়ে এনামুল হকের বিরুদ্ধে উপজেলা পরিষদের সামনে পাল্টা মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।
সাংবাদিক পরিচয়দানকারী ইব্রাহিম শেখ তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এনামুলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ মানুষের পাশে দাড়ানোর কারণে আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ করা হয়েছে। সে (ইব্রাহিম) ফরিদপুর মুসলিম মিশন কলেজের প্রভাষক এবং তৃতীয়মাত্রা পত্রিকার ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে বলে দাবি করেন।
ইব্রাহিমের আনা এসব অভিযোগ অস্বীকার করে এনামুল হক বলেন, দীর্ঘদিন আমি উপজেলা আ.লীগের সহ-প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছি। কিন্তু এই ছেলেটি (ইব্রাহিম) আমার গুনবহা ইউনিয়নের ফেলাননগর ও নয়ানীপাড়া গ্রামের দলীয় লোকজনের উপর দীর্ঘদিন অত্যাচার করে আসছে। এলাকা সে বিএনপির ক্যাডার হিসেবে পরিচিত। বিভিন্ন সময় আ.লীগের লোকজনকে মারধর করে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে আমার দলীয় নেতাকর্মীদের হয়রানি করছে ও বিদ্যুৎ দেওয়ার নাম করে টাকা পয়সা নিয়েছে; যারা টাকা না দিতে চায় তাদের বিদ্যুৎ নিতে দেবে বলে হুমকি ধমকি দিচ্ছে। সে আরো বলে বিদ্যুৎ আমি এনে দিচ্ছি এটা সরকারি বিদ্যুৎ নয়।
বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম শামীম হাসান বলেন, দুটি মানববন্ধনের সংবাদ শুনেছি। এনামুল হক পুলিশের সিনিয়র অফিসার বরাবর একটা অভিযোগ দিবেন তার একটা অনুলিপি থানায় জমা দিয়েছেন।


Spread the love