Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বর্তমানে আমাদের দেশের যুব সমাজের অধঃপতনের অন্যতম প্রধান কারণ মাদকাসক্তি। দেশের যুবসমাজের একটি বড় অংশ আশংকাজনকভাবে মাদক হিসেবে ব্যবহৃত গাঁজার প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে। মাদকের টাকা জোগাড় করার জন্য মাদকাসক্ত যুব সমাজ বিভিন্ন ধরনের অনৈতিক কার্যকলাপ, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অবৈধ কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। “বাংলাদেশ আমার অহংকার” এই ¯েøাগান নিয়ে র‌্যাব যুব সমাজকে মাদকের ভয়াল থাবা থেকে রক্ষার জন্য প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই দেশব্যাপী বিভিন্ন মাদক ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আপোষহীন অবস্থানে থেকে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে যা দেশের সর্বস্তরের জনসাধারন কর্তৃক ইতোমধ্যেই বিশেষভাবে প্রশংসিত হয়েছে।
এরই ধারাবাহিকতায় র‌্যাব-৮, সিপিসি-২, ফরিদপুর ক্যাম্প গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানার গোয়ালচামট রথখোলা এলাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী অবৈধ মাদক দ্রব্য গাঁজা বিক্রয় কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। এ প্রেক্ষিতে ১৭/০৭/২০১৯ ইং তারিখ রাতে গোপন উৎস থেকে তথ্য পাওয়া যায় যে, গোয়ালচামট রথ খোলা গ্রামস্থ জৈনকা মোছাঃ নাসিমা বেগমের বাড়ীতে মাদকদ্রব্য গাঁজা ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে । উক্ত সংবাদের প্রেক্ষিতে সিপিসি-২, ফরিদপুর র‌্যাব ক্যাম্পের একটি বিশেষ আভিযানিক দল ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানাধীন গোয়ালচামট রথখোলা গ্রামস্থ জৈনকা মোছাঃ নাসিমা বেগমের বাড়ী হতে মাদক ব্যবসায়ী আসামী মোছাঃ নাসিমা বেগম (৩৫), স্বামী-মোঃ হেলাল শেখ, সাং-রথখোলা, থানা-কোতয়ালী, জেলা-ফরিদপুরকে আটক করে।
এ সময় আসামীর হেফাজত থেকে ১৯০ গ্রাম গাঁজা ও মাদক ক্রয়-বিক্রয়ের কাজে ব্যবহৃত ০১টি সীমকার্ডসহ ০১টি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়। আটককৃত আসামী মোছাঃ নাসিমা বেগম (৩৫) কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধ মাদক দ্রব্য গাঁজা নিজ হেফাজতে রেখে ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানার গোয়ালচামট এলাকায় পাইকারী ও খুচরা বিক্রির কথা স্বীআর করে।
উদ্ধারকৃত গাঁজা ও অন্যান্য আলামতসহ গ্রেফতারকৃত আসামীকে ফরিদপুর জেলার কোতয়ালী থানায় হস্তান্ত করে তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে একটা মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।


Spread the love