Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ফরিদপুরের সদর উপজেলার ঈশানগোপালপুর ইউনিয়নের চাদপুর মৌজার বিএস(প্রস্তাবিত) ৩৬৬১ নং দাগের ৩১ শতাংশ জমি ভুয়া জাল দলিল দিয়ে সংখ্যালুগু এক পরিবারের জমি দখলের পায়তারা করছে ভুয়া জাল দলিল তৈরির নায়ক নায়েব আলী। বুধবার সকাল ১১ টায় তার লোকজন নিয়ে সে ওই জমি দখলের চেষ্টা চালায়। এসময় জমির মালিকেরা গ্রাম্য চোকিদার নিয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ সরকারের দোহাই দিলেও তা অমান্য করে সে আবার বেড়া দেয়। পরে জমির মালিক রাজীব দাস ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।
এসময় রাজীব দাস জানান, নায়েব আলী বিভিন্ন সময়ে হুমকি দামকি দেন আমাদের দেখে নেওয়ার জন্য ও মিথ্যা মামলা দেওয়ার জন্য। এই জমি নিয়ে একটি মামলা দেওয়ানী কোর্টে চলমান রয়েছে। মামলা চলমান থাকা অবস্থায় আমাদের জমি জোর করে দখল করে নেওয়ার জন্য বেড়া দেয় সে। তিনি বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান তার প্রতিনিধি পাঠিয়ে বেড়া ভেঙ্গে দিলেও সে তার কথা অমান্য করে আবার বেড়া দেয়। তিনি বলেন, তার বাড়ীতে ২০ বছর পূর্বে নায়েব আলী রাতে সিং কেটে ঘড়ে ঢুকে ম্যাগনেট পাওয়ার আশায় চুরি করেন বিভিন্ন মূল্যবান জিনিষ। পরে তিনি ওই এলাকা ছাড়া হন।
এ ব্যাপারে কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ এএফএম নাসিম জানান, এ ব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি তদন্তের জন্য। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
উল্লেখ্য চাদঁপুর এলাকার নায়েব আলীর আপন বড় ভাই লালন সেকের ক্রয়কৃৃত ও সুনিল দাসদের নিজ নামীয় জমি। সেই জমি ভুয়া জাল দলিল বানিয়ে নামজারী করেন তার নিজ নামে নায়েব আলী। জমির মালিকেরা খলিলপুর তহসিল অফিসে খাজনা দিতে গিয়ে দেখেন রেজিষ্টার টুতে ভুলবশত জমির তথ্য না থাকায় এই সুযোগে এন্টি করেন তার নামে। এরপর চতুর নায়েব আলী আর দেরী না করে জমি দিয়ে দেন আরেকটি নামজারী করে তার ছেলে ও মেয়েদের নামে। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগিরা তহসিল অফিস ও সদর উপজেলা ভূমি অফিসে অভিযোগ জানালে অতি দ্রæত এই ভুয়া আদেশ দুটি বাতিল করেন সহকারী কমিশনার(ভূমি)।


Spread the love