আজ বুধবার, ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং,রাত ১১:১৭

ফরিদপুরে কলেজ ছাত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ফরিদপুর শহরের লক্ষীপুর সিটি কলেজের শিক্ষার্থী নৃত্য শিল্পী দেলোয়ারা দিলু ওরফে মরিয়ম (২৫) কে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে নিহতের পরিবারের অভিযোগ। এই মৃত্যুর ঘটনায় দোষীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানিয়ে সিটি কলেজ শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী রবিবার দুপুরে ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সামনে মুজিব সড়কে ঘণ্টা ব্যাপি মানব বন্ধন বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচি পালন করেন। পরে তারা জেলা প্রশাসকের কাছে একটি স্মারক লিপি প্রদান করেন।
ঘটনার সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার ২৬ নভেম্বর রাতে সিটি কলেজের শিক্ষার্থী নৃত্য শিল্পী দেলোয়ারা দিলু ওরফে মরিয়ম (২৫) এর পিতা বিল্লাল খাঁর কাছে মুঠো ফোনে একটি কল আসে যে তার কন্যাকে শহরতুলীর সি এন্ড বি ঘাট এলাকার আইজুদ্দিন মাতুব্বর ডাঙ্গীর একটি বাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থল ছুটে গিয়ে মরিয়মের প্রেমিক আলামিন ওরফে স্বাধীনদের বাড়ির অভ্যন্তর থেকে আগুনে ঝলসে যাওয়া মুর্মুস্ব অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে প্রথমে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ৫ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শনিবার রাত ১.২০ মিনিটে মরিময় মৃত্যুবরণ করে। রবিবার সকালে ফরিদপুরে মরিয়মের লাশ এসে পৌঁছালে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতরণ হয়। আত্মীয় স্বজন ও সহপাঠীদের কান্নায় আশপাশের এলাকার মানুষও অশ্রæ ধরে রাখতে পারে না। কান্না জনিত কণ্ঠে মরিয়মের মা মনোয়ারা বেগম জানান, আমার মেয়ের সাথে সি এন্ড বি ঘাট এলাকার আলামিন ওরফে স্বাধীন এর ভালবাসার সম্পর্ক ছিল ৪ বছরের। বিয়ে করবে করবে বলে নানা তালবাহানা করে আসছিল। আমি ঐ এলাকার কয়েক ব্যক্তির কাছে এ বিষয়ে নালিশ নিয়ে গেলে তারা আমাকে সমাধানের আশ্বাস দিলেও তা করেনি। ঘটনার দিন আমার মেয়ে ঐ বাড়িতে গিয়েছিল তার অধিকারের দাবি নিয়ে। এ সময় আলামিন ও তার পরিবার আমার মেয়ের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। আমার মেয়ে হাসপাতাল বেডে মৃত্যুর আগে এই কথা বলে গেছে। আমি এই হত্যাকান্ডের দিষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। ভালবাসার জন্য এমন মৃত্যু যেন কারও না হয়।
এ বিষয়ে সি এন্ড বি ঘাট এলাকায় অভিযুক্তর বাড়িতে গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি। এলাকার কয়েক শিশু তখন আগুনে পুরে যাবার বর্ণনা দেন যে তারা চিৎকার পেয়ে ছুটে এসে ছিল দেখার জন্য এখানে।
সংশ্লিষ্ট এলাকার ডিক্রির চর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন আবু এই বিষয়ে বলেন, কিছু দিন আগে একটি মেয়ে তার মাকে নিয়ে আওয়ামীলীগ অফিসে এসেছিল মেয়েটি তখন কথা বলতে পারছিল না। তার মায়ের বক্তব্য শুনে আমি তখন তাদেরকে স্থানীয় থানা পুলিশের কাছে যেতে বলি। কিন্তু অফিসে থাকা এলাকার নিজাম মেম্বর তখন তার মাকে বলেছিল দু-চারদিন অপেক্ষা করুন আমরা বিষয়টি মিমাংসা করতে পারি কি না? এর পরে আর আমার কাছে আসেনি। মৃত্যুর ঘটনাটি দুঃখ জনক।
এই ঘটনায় নিহত পরিবারের পক্ষ থেকে কোতয়ালী থানায় একটি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে বলে জানায়। মৃত্যুর ঘটনার বিষয়ে কোতয়ালী থানা পুলিশ সাংবাদিকদের বলেন তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

     আরো পড়ুন