Spread the love


বোয়ালমারী প্রতিনিধি: ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার শেখর ইউনিয়নের রাখালতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শারমিন জাহানের বিরুদ্ধে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মো. মাসুম হোসেন উপজেলা শিক্ষা অফিস বরাবর ২৬ জানুয়ারি রোববার লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে ওইদিন প্রধান শিক্ষককে শোকজ করেন উপজেলা শিক্ষা অফিস। শোকজের চিঠিতে উল্লেখ করা হয় আগামি ৭ কার্যদিবসের মধ্যে প্রধান শিক্ষককে সন্তষ্টমূলক জবাব দিতে। লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, প্রধান শিক্ষক সহকারি শিক্ষকদের সাথে খারাপ ব্যবহার, অভিভাবকদের ফোনের মাধ্যমে ভয়-ভীতি দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের তার (প্রধান শিক্ষক) কাছে প্রাইভেট পড়তে বাধ্য করা, সহকারি শিক্ষক তৃপ্তি খানমকে সমাবেশ চলাকালিন সময় শিক্ষার্থীদের সামনে লাঞ্ছিত করে এবং গত ২২ জানুয়ারি ৫ম শ্রেণীর ছাত্র রিয়াদকে একাধিকবার কান ধরে টানে ও কানে মুখে মারতে থাকে, এক পর্যায়ে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আবুল বাশার বলেন, প্রধান শিক্ষকের ব্যবহার খুব খারাপ, শিক্ষকদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।
অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক শারমিন জাহান বলেন, ছাত্র রিয়াদ একটা গালি দেওয়ার কারণে তাকে থাপ্পড় মারা হয়। পরবর্তীতে তার বাবা মার সাথে মিমাংসা করে ফেলেছি। আমার বিরুদ্ধে যে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য নয়। শোকজরে চিঠি পেয়েছি সময় মত জবাব দেওয়া হবে।
বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. সহিদুল মোল্যা বলেন, এক ছাত্রকে থাপ্পড় মারার কথা শুনে আমি স্কুলে গিয়ে ওই ছাত্রর অভিভাবকদের ডেকে প্রধান শিক্ষককের সাথে মিমাংসা করে দিয়েছি।
উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার মো. সরোয়ার হোসেন বলেন, প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়ে আমরা তদন্ত করে তাকে শোকজ করেছি এবং ৭ কার্যদিবসের মধ্যে জবাব চেয়ে চিঠি দিয়েছি। যদি শোকজের জবাব সন্তষ্টমূলক না হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


Spread the love