Spread the love

রবিউল হাসান রাজিবঃ বর্তমানে সারা দেশে বহুল আলোচিত প্রানঘাতী নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের কারনে জরুরী প্রয়োজনীয় ছাড়া সকল কিছু রাষ্ট্রীয়ভাবে বন্ধ ঘোষণা করেছে। এর ফলে দিন-মুজুর দরিদ্রদের আয় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তারা হতাশায় যেন না থাকে এর জন্য সরকারীভাবে বিভিন্ন ভাবে খাদ্য সামগ্রী বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে।

এ ছাড়াও সাশ্রয়ী মূল্যে করোনা ভাইরাস উপলক্ষ্যে সরকার ঘোষিত সাড়া দেশে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এর পন্য বিক্রয় কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

শুক্রবার ( ১৭/০৪/২০২০) ফরিদপুর বর্ধিত পৌরসভার পশরা এলাকায় তিন মাথার মোরে মসজিদ সংলগ্ন পিক আপ যোগে টিসিবির পণ্য ন্যায্য মূল্যে বিক্রয় শুরু করা হয়েছে।

বিক্রয় সেবা প্রদানে মুন খন্দকার এর পরিচালনায় শাওন, সোহাগ প্রমুখ সহযোগিতা করেছেন।

টিসিবির পন্য কিনতে এলাকার লোকজনের ভীড় চোখে দেখা যায়। করোনার সংক্রমন রোধে জন সমাগম নিষিদ্ধ তাই এখানে স্বাভাবিক ভাবেই লোকজন লাইন দিয়ে একটু দূরে দূরে অবস্থান করে পণ্য ক্রয় করেছে।

টিসিবির ডিলাররা খোলাবাজারে ৮০ টাকা করে প্রতি লিটার তৈল, ৫০ টাকা করে চিনি ও ডাল, ৩৫ টাকা করে কেজিতে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। বাজারের মূল্যের চেয়ে টিসিবির মূল্যে কম হওয়ায় এলাকার লোকজনের ভীড় ছিল।

টিসিবির আদেশে বলা হয়েছে, ২৬ মার্চ থেকে ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত সব অফিস আদালত বন্ধ থাকলেও দৈনন্দিন পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত কল্পে সরকার টিসিবি’র সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল করেছেন। মাঠ পর্যায়ে পণ্য বিক্রির কার্যাবলী সুষ্ঠুভাবে তদারকী করার জন্য প্রধান কার্যালয়ে একটি কন্ট্রোল সেল খোলা হয়েছে। টিসির প্রধান কার্যালয়ের বেশকিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিত্য দিনের কার্যাদি সম্পাদনের পাশাপশি কন্ট্রোল সেলের জন্য অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এ কার্যক্রমের আওতায় প্রতিজন ভোক্তা ৫০ টাকা কেজি দরে সর্বোচ্চ ৪ কেজি চিনি, ৮০ টাকা প্রতি লিটার দরে সর্বোচ্চ ৫ লিটার সয়াবিন তেল, ৫০ টাকা কেজি দরে সর্বোচ্চ ২ কেজি মশুর ডাল এবং ৩৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করবে। প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে বিকেল ৬টা পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলছে।

এদিকে কম মূল্যে খোলা বাজারে টিসিবি’র পণ্য বিক্রি সম্প্রসারণ করার জন্য জরুরি ভিত্তিতে ডিলার নিয়োগ দিয়েছে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান টিসিবি।


Spread the love