Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ করোনার সাথে যুদ্ধ করে করে অবশেষে জগতের মায়া ত্যাগ করে ওপারে চলে গেলেন ফরিদপুর সদর উপজেলা ডেপুটি কমান্ডার ও ফরিদপুর শহরের পুরাতান কালীবাড়ীর পুরোহিত কমলেশ চক্রবর্তী ভানু (৭০)। তিনি গত ১২ (বার) দিন ধরে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। রবিবার ভোর ৭টা ৪০ মিনিটে ফমেক হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে ২ পুত্র, স্ত্রী, স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। এই বীর মুক্তিযোদ্ধার মরদেহ দুপুরে অম্বিকাপুর শশ্মানে নিয়ে যাওয়া হলে, সেখানে স্থানীয় কিছু জনতা তার সৎকারে বাঁধা সৃষ্টি করে, শশ্মানের চিতায় করোনায় মৃত্যুবরণকারীর দেহ দাহ হতে দেওয়া হবে না মর্মে বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে সেখানে পুলিশ বাড়ানো হয়। সৎকারের কাজে শশ্মান কমিটি, সৎকার সমিতি বা হিন্দু সমাজের কোন ব্যক্তিবর্গকে পাওয়া যায়নি।
খবর পেয়ে আধুনিক ফরিদপুরের রূপকার স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান ফরিদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ইঞ্জিঃ খন্দঃ মোশাররফ হোসেন দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। তার নির্দেশে ফরিদপুর শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী বরকত ইবনে সালাম, জেলা যুবলীগের আহবায়ক এইচ এম ফুয়াদ ও ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ ইমতিয়াজ হাসান রুবেল নেতৃবৃন্দসহ ঘটনাস্থলে যান এবং সৎকারে বিঘ্ন সৃষ্টিকারী জনতার সাথে আলোচনার মাধ্যমে বিষয় দ্রুত সমাধান করেন।
জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা জানিয়ে অবশেষে তারাই নিহতের পুত্রের মাধ্যমে সনাতনি ধর্ম অনুযায়ী পিতার মুখাগ্নি নিবেদন করে পুলিশ পাহাড়ায় দাহ সম্পন্ন করেন।
এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা ই্উএনও মোঃ মাসুম রেজা, সদর সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রাশেদুল ইসলাম, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গ।
সদর উপজেলা ইউএনও মোঃ মাসুম রেজা বলেন, খবর পেয়ে উপজেলা প্রশাসনের তরফ থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধা কমলেশ চক্রবর্তী ভানুর লাশ দাহের জন্য সকল ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়। এতে পরিবারের লোকজন বা অন্যদের পাওয়া যায়নি দাহের সময়। এরআগে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। তার দাহ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা উপজেলা প্রশাসন সেখানে থেকে সকল কাজে সহযোগিতা করা হয় বলে তিনি জানান।
এ বিষয়ে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রাশেদুল ইসলাম জানান, আমরা খবর পায় বীর মুক্তিযোদ্ধা কমলেশ চক্রবর্তী ভানুর লাশ দাফনে শশ্মানের সামনে বাধা প্রদান করছে স্থানীয় এলাকাবাসী। এসময় এসপি স্যারের নির্দেশে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে গিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসীর করা অবরোধ সড়ানো হয়।
এ বিষয়ে অম্বিকাপুর শশ্মান কমিটির সভাপতি লক্ষন দত্তের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন আমি বিষয়টি শুনেছি কিন্তু যায়নি। করোনা ছড়িয়ে পড়ার ভয়ে এলাকার স্থানীয়রা লাশটি দাহ বাঁধা দিয়েছিল।
তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি, সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান ফরিদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ইঞ্জিঃ খন্দঃ মোশাররফ হোসেন, ফরিদপুর শহর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী বরকত ইবনে সালাম ও ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ ইমতিয়াজ হাসান রুবেল, স্থানীয় জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, শিবাজী নিকেতন, ব্রাহ্মণ পুরোহিত ঐক্য পরিষদ, বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ ফরিদপুরের বিভিন্ন সামাজিক ও সেবামূলক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।


Spread the love