Spread the love

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঐতিহ্যবাহী ফরিদপুর প্রেসক্লাবের বিশেষ সাধারণ সভায় ক্লাবের ২০২০-২১ মেয়াদের কার্যনির্বাহী কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে বিলুপ্ত করা হয়েছে। একই সাথে ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া ক্লাবের সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেল ও সদস্য সাজ্জাদ হোসেন বরকতকে প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হয়েছে।

রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় ফরিদপুর প্রেসক্লাবের বিশেষ সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ক্লাবের সদ্যবিলুপ্ত কমিটির সহ সভাপতি শেখ ফয়েজ আহমেদ। সভার শুরুতে ক্লাব সদস্য মরহুম আজম আমীর আলীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। পরে এজেন্ডা অনুযায়ী আলোচনা শুরু হয়। এতে সকল সদস্যের আবেদনের প্রেক্ষিতে ইমতিয়াজ হাসান রুবেল ও সাজ্জাদ হোসেন বরকতকে প্রেসক্লাব থেকে স্থায়ী ভাবে বহিস্কার করা হয়।

জরুরী সাধারন সভায় জানানো হয়, সদ্য বহিস্কৃত ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ ইমতিয়াজ হাসান রুবেল ও সাধারন সদস্য সাজ্জাদ হোসেন বরকত অস্ত্র, মদ, চাল সহ গ্রেফতার হয় এবং তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা হয়। এ ঘটানায় ঐতিহ্যবাহী ফরিদপুর প্রেসক্লাবের মান ক্ষুন্ন হওয়ায় তাদের বহিস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া মোঃ ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের নিয়ন্ত্রণে যে কমিটি নির্বাচিত হয় তা অবৈধ ঘোষণা করে ঐ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করা হয়েছে।

সভায় সদস্যরা বক্তব্যের মাধ্যমে জানান, এই ইমতিয়াজ হাসান রবেল সভাপতি থাকাকালীন মতের বিরুদ্ধে কেউ গেলে তাদের বিভিন্ন কারন দেখিয়ে বহিস্কার করা হয়। তার এই রোষানল থেকে রক্ষা পায়নি, ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মো: হাবিবুর রহমান হাবিব, কবিরুল ইসলাম সিদ্দিকী, নাজিম বকাউল, ফিরোজ আহমেদ (মৃত্যু বরণ করেছেন) , আশিষ পোদ্দার বিমান ও মাহাবুবুল ইসলাম পিকুল। এদেরকে অবৈধভাবে বহিস্কার ঘোষনা করা হয়েছে। বক্তারা নির্যাতিত সকল সাংবাদিকদের ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সদস্য পদ বহাল রাখার আহ্বান জানান। এ সময় উল্লেখিত ব্যক্তিদের সদস্য পদ বহাল রাখা হবে বলে জানানো হয়।

এছাড়া ক্লাবের সকল সদস্যের মতামতের ভিক্তিতে গঠনতন্ত্র স্থগিত রেখে বর্তমান কমিটি বিলুপ্ত ঘোষনা করে সাত সদস্য বিশিষ্ট একটি আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। ক্লাবের প্রবীন সদস্য আমিনুর রহমান ফরিদকে আহবায়ক এবং নির্মলেন্দু চক্রবর্তী শংকরকে সদস্য সচিব করে এ আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, এস এম তমিজউদ্দিন তাজ, এম এ জিলানি রুনু, ওয়াহিদ মিলটন, পান্না বালা ও গোলাম মোঃ নাসির।

আহবায়ক কমিটির কেউই আগামী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না। এছাড়া এ কমিটি নতুন একটি গঠনতন্ত্র করার জন্য কমিটি করে দেবেন। সেই কমিটি গঠনতন্ত্র তৈরী করবেন। আহবায়ক কমিটি ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচনের আয়োজন করবেন। এছাড়া ক্লাবের বিগত দিনে যাদের বহিস্কার করা হয়েছে তাদের পুনরায় ক্লাবের সদস্যপদ ফিরিয়ে দিতে কাজ করবেন।

উল্লেখ্য, ফরিদপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহার বাড়িতে হামলার ঘটনায় মামলায় গত ৭ জুন রবিবার রাতে শহরের বদরপুর মোড় থেকে ফরিদপুর শহর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সাধারন সদস্য সাজ্জাদ হোসেন বরকত, তার ভাই ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ ইমতিয়াজ হাসান রুবেল ও তাদের সহযোগী রেজাউল করিম বিপুল সহ ৯জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর তাদের বাসা ও রেস্ট হাউজ থেকে ২টি শর্টগান, ৫টি বিদেশী পিস্তলসহ ৭টি আগ্নেয়াস্ত্র, ৯১ রাউন্ড গুলি, ৬ বোতল মদ, ১৮০টি কার্তুজ, ৬৫পিচ ইয়াবা, খাদ্য অধিদপ্তরের ১২০০ বস্তায় ৬০ হাজার কেজি চাল, ৩ হাজার ইউএস ডলার, ৯৮ হাজার ভারতীয় রুপী, বাংলাদেশী ২৯ লাখ টাকা ও পাচটি পাসপোর্ট উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর তাদের বিরুদ্ধে আরো চারটি মামলা হয়।


Spread the love