Spread the love

চরভদ্রাসন প্রতিনিধি: ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে কাঠাল পাড়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে নারীসহ ৩ জন মারাত্মকভাবে জখম হয়েছে।

আহতদের মধ্যে দুই নারীসহ তিনজনকে চরভদ্রাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

গত রবিবার সন্ধ্যায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের টিলারচর গ্রামের জাকেরের সুরা বাজার সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, একই গ্রামের শহিদ প্রামাণিক ও খালেক প্রামানিকের বসত বাড়ির সিমানা নিয়ে উভয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিলো।

ঘটনার দিন উভয়ের বসতবাড়ির সিমানায় শহিদ প্রামানিক কাঠাল পারতে গেলে খালেক প্রামানিক তাকে কাঠাল পারতে নিষেধ করে।

এতে উভয়পক্ষে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় হটাৎ করে শহিদ প্রামানিক, তার স্ত্রী ছালমা খাতুন ও তাদের দুই ছেল সজিব প্রামানিক ও সিফাত প্রামানিক ধারালু চাকু, চাপাতি, স্ট্রীলের পাইপ ও দেশীয় অস্ত্র,সস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষ মুরাদ প্রামানিককে মাথায় চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্বকভাবে জখম করে।

এসময় খালেক প্রামানিক তার ছেলেকে বাচাঁতে এগিয়ে গেলে তার স্ত্রী রাজিয়া খাতুন, মেয়ে রানি খাতুন ও তার ছয় মাসের গর্ভবতি পুত্রবধূ সিফালি খাতুনকে প্রতিপক্ষরা কিল, ঘুষি, চুল টেনে ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুত্বরভাবে নিলা- ফুলা জখম করে।

শুধু তাই নয়, এসময় নির্যাতিত খালেক প্রামানিক পরিবারের লোকজনদের
চিৎকার শুনে স্থানীয় ও প্রতিবেশি নিজাম প্রামানিক, ছালমা, হাসি খাতুন ও মমতা বেগম তাদেরকে বাচাঁতে গেলে শহিদ প্রামানিকের লোকজন তাদেরকেও চাকুর পার ও নাকে, মুখে কিল- ঘুষি মেরে আহত করেন।

পরে স্থানীয় লোকজন আহতদেরকে উদ্ধার করে চরভদ্রাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

মঙ্গলবার সকালে চরভদ্রাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেডে মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়ে আহত ভর্তি রোগী মুরাদ প্রামানিক জানান, আমাদের প্রতিবেশি শহিদ প্রামানিক ও তার পরিবারের লোকজন কয়েকটা কাঠাল পারা নিয়ে আমাকে, আমার গর্ভবতি স্ত্রীসহ আমার পরিবারের লোকজনদেরকে চাপাতি, চাকু এবং দেশীয় অস্ত্র,সস্ত্র দিয়ে আমাদেরকে কুপিয়ে, পিটিয়ে, কিল- ঘুষি মেরে মারাত্বকভাবে জখম করে।

তিনি আরো জানান, আমরা এঘটনায় ঐদিনই প্রতিপক্ষ শহিদ প্রামানিক, তার স্ত্রী ছালমা খাতুন এবং তাদের দুই ছেল সজিব প্রামানিক ও সিফাত প্রামানিকের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি।

এব্যাপারে জানতে চেয়ে শহিদ প্রামানিকের মুঠোফোনে ফোন দিলে তার সাথে কোনো যোগাযোগ করা যায়নি।

চরভদ্রাসন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডেকেল এসিস্ট্যান্ট মো. জুয়েল হোসেন জানান, আহত ভর্তি রোগীদের চিকিৎসা অব্যাহত আছে। এর মধ্যে একজনের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। স্বজনরা চাইলে তাকে সিটি স্কীন করাতে পারে। তবে, তাদের সবার অবস্থায়ই ভালো। চিকিৎসা নিলে তারা এখানেই সুস্থ হবেন বলে তিনি জানান।

চরভদ্রাসন থানার উপপরিদর্শক( এসআই) অতুল জোয়াদ্দার জানান, এঘটনায় খালেক প্রামানিকের লোকজন প্রতিপক্ষ শহিদ প্রামানিক পক্ষের চাঁরজনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে, এঘটনায় থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি আরো জানান, আমরা অভিযোগের ভিত্তিতে আসামীদের বাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে গ্রেফতার অভিযান চালাচ্ছি।


Spread the love