Spread the love

রবিউল হাসান রাজিবঃ ফরিদপুর সদর উপজেলায় কিছু স্থানে গত ১২ ঘণ্টায় ফরিদপুরে পদ্মা নদীর পানি আরও বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ১০৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি বৃদ্ধির ফলে জেলা সদর থেকে চরভদ্রাসন ও সদরপুর উপজেলায় যাওয়ার আলিয়াবাদ ইউনিয়নের অন্তর্গত সড়কের কয়েকটি স্থান পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। এছাড়াও ওই সড়কের বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দেওয়ায় হুমকির মুখে রয়েছে। বন্ধ রয়েছে ভারী যান চলাচল।

ঘরবাড়ি পানিতে ডুবে যাওয়ায় পরিবার নিয়ে খোলা আকাশের নিচে কোন রকম পলিথিন, পাটকাঠি দিয়ে ছাওনি বানিয়ে অনাহারে, অর্ধাহারে দিন পার করছে সদর উপজেলার আলিয়াবাদ ইউনিয়নের কয়েকশত পরিবার।

জানতে পেরে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুম রেজা এ সকল অসহায় পরিবারের মাঝে হাজির হয়েছেন টিন, চট ও শুকনো খাবার নিয়ে।

আজ বেলা ১১.৩০ টায় তিনি এসব নিয়ে উপস্থিত হন আলিয়াবাদ ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে বন্যায় বাড়িঘর ছেড়ে রাস্তায়, বেড়িবাধের উপর আস্রয় নেয়া এসব পরিবারের মাঝে। তিনি এসব এলাকা ঘুরে ঘুরে অসহায় পরিবার খুজে খুজে যাদের টিন ক্রয় করার সামর্থ্য নেই তাদেরকে টিন দিয়েছেন ঘর তৈরি করার জন্য।

অসহায় প্রত্যেক পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার চিড়া, গুড়, বিস্কুট, খাবার স্যালাইন, পানি বিশুদ্ধ করার ট্যাবলেট প্রদান করেছেন, দিয়েছেন একটি করে চটের কম্বল।

মাসুম রেজা বলেন, হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে, ফলে ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। যারা বিভিন্ন রাস্তায়, বেড়িবাধে আস্রয় নিয়েছে তাদের প্রয়োজন সরকার পুরণ করতে সচেষ্ট রয়েছে।

আমরা টিন, শুকনো খাবার দিয়ে প্রয়োজন পুরণ করতে কাজ করছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত আমরা নিয়মিত ভাবে এই সহায়তা প্রদান করে যাবো। শিঘ্রই চালের বরাদ্দ আসবে, প্রয়োজন অনুযায়ী সকলকে চালও দেয়া হবে। কেউ হতাশ হবেন না, প্রয়োজনে আপনাদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে আমাকে জানবেন, আমি ব্যবস্থা নিব।

এ সময় সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভুমি) শাহ মোঃ সজিব, ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ওমর আলী ডাবলু, সেচ্ছাসেবী সংগঠন তরুছায়ার সভাপতি খালিদ মাহমুদ সজীব সফর সঙ্গী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।


Spread the love