Spread the love


বোয়ালমারী প্রতিনিধিঃ যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ সম্পা ভৌমিককে (২২) হত্যা করে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগে থানায় মামলা করেছে নিহতের মা সুনিতী বসাক। স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে স্বামী বিকাশ বিশ্বাসকে (২৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। লাশ ময়না তদন্তের জন্য ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। শনিবার রাতে ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌর সদরের সাবরেজিস্ট্রি অফিসের পাশে শাহনেওয়াজের পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বোয়ালমারী বাজারে ভাড়া থাকা উপজেলার শেরাপুর গ্রামের বিমল বিশ্বাসের ছেলে বিকাশ বিশ্বাসের সাথে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে বসবাস করা বোয়ালমারী উপজেলার বেড়াদী গ্রামের শ্যামল ভৌমিক ও সুনিতী বসাকের মেয়ে সম্পা ভৌমিকের বিয়ে হয় ২০১৭ সালের ২৩ জুলাই গোপালগঞ্জ আদালতে এফিডেভিটের মাধ্যমে। এ বছরের ১ জানুয়ারি মেয়েকে তুলে দেওযার পর থেকে যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করা হয় সম্পাকে। যদিও বিয়ের সময় স্বর্ণালংকারসহ জিনিসপত্র দেওয়া হয়। এ বছরের ১৭ জুলাই আরও ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হয়। এরপরও নির্যাতন বন্ধ হয়নি। গতকাল রোববার ভোরে বিকাশের বাবা বিমল বিশ্বাস ফোন করে মেয়ের পরিবারকে জানায় সম্পা অসুস্থ কিন্তু তারা সকালে এসে দেখেন লাশ পুলিশে থানায় নিয়ে গেছেন। সুনিতী বসাক অভিযোগ করেন তার মেয়েকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করছে। এ জন্য সম্পার স্বামী বিকাশ বিশ্বাস (২৬), বিলাস বিশ্বাস (২৮), লিটা বিশ্বাস (৩০) ও এদের বাবা বিমল বিশ্বাসকে (৫৮) আসামি করে মামলা করা হয়েছে।
বিমল বিশ্বাস অবশ্য বলেন, তার বেটার বৌ আত্মহত্যা করেছে। হত্যা করার অভিযোগ ঠিক নয়।
বোয়ালমারী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আমিনুর রহমান বলেন, যৌতুকের দাবিতে হত্যা কান্ডের ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ এর ক/৩০ ধারায় মামলা হয়েছে। তিনি নিজে হত্যাকান্ডের স্থল পরিদর্শন করেছেন। সুরতহাল করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য ফরিদপুর পাঠানো হয়েছে। সম্পার স্বামী বিকাশ বিশ্বাসকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।


Spread the love