আজ শনিবার, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং,সকাল ৯:০৮

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় মোঃ রিজুকে কুপিয়ে জখম করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

রবিউল হাসান রাজিবঃ ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলায় মোঃ রিজু নামের এক ব্যাক্তিকে কুপিয়ে জখম করার প্রতিবাদে ফরিদপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। আজ ১২ আগস্ট বুধবার বিকেল ৪.১৫ টার দিকে ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, ভাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ সফিকুর রহমান ভাঙ্গা থানায় যোগদানের পর থেকেই ভাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগসহ সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিভিন্ন মিথ্যা অযুহাতে থানায় ধরে নিয়ে শারিরীক অত্যাচার নির্যাতন করে টাকার দাবী করেন নতুবা মাদক, চাঁদাবাজি বা পেন্ডিং মামলায় আসামি করে চালান করে দিবে বলে ভয় ভীতি দেখান। যারা টাকা দিতে পারে তাদেরকে থানা থেকে ১৫১ বা ৩৪ ধারায় চালান করা হয়। আর যারা টাকা দিতে না পারে তারা আসামি ইিসেবে মাদক বা কোন পেন্ডিং মামলায় জেলা খাটে।

বক্তারা বলেন, ওসি সফিকুর রহমান নিজেকে টুঙ্গিপাড়া কলেজের সাবেক ভিপি বলে দাবি করেন এবং পুলিশের উপর মহলের সাথে ভাল সখ্যতা রয়েছে বলে তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করে লাভের পরিবর্তে ক্ষতিই বেশি হবে বলে এলাকার জনগনকে হুমকি দিয়ে থাকেন। ফলে তার বিরুদ্ধে কেউ কিছুই বলার সাহস করে না।

ভাঙ্গা পৌরসভার সাবেক প্যানেল মেয়র ও ভাঙ্গা পৌর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি এমদাদুল হক বাচ্চু বলেন, ওসি সফিকুর রহমানের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে অবশেষে গত ২৫/০৬/২০ তারিখে ওসি সফিকুর রহমানের বিরুদ্ধে ফরিদপুরের পুলিশ সুপারসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইতিমধ্যে সাক্ষীও গ্রহণ করেছেন। অভিযোগ দায়ের করার পর থেকেই ওসি সফিকুর রহমান আমাকে অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ প্রয়োগ করে আসছিল। কিন্তু আমি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ না তুলে নেওয়ায় ওসির প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ইন্ধনে মাদক ব্যবসায়ী রাজ্জাক ফকির, ইসমাইল ফকির, সিদ্দিক মাতুব্বর, ডাকাত আমির আলী গং গত ১১ আগষ্ট সন্ধ্যা আনুমানিক ৭ টার দিকে আমার বাড়ির সামনে থেকে চাপাতি, চাইনিজ কুড়াল দিয়ে হত্যার উদ্যেশ্যে নির্মম ভাবে কুপিয়ে আহত করে। আমার ছেলে এখন ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। ফরিদপুরেও কি আরেকজন ওসি প্রদিপ তৈরী হলো? আমরা এখন এই শংকাতে আছি। আমরা ভাঙ্গা উপজেলাবাসি ওসি সফিকুর রহমানের হাত থেকে মুক্তি চাই এবং আমার ছেলেকে কুপিয়ে যারা আহত করেছে তাদের বিচার চাই।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য বিপুল ঘোষ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মাসুদ হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) ঝর্ণা হাসান, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামালউদ্দীন, কে এম সেলিম, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক আইভি মাসুদ, জেলা শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক দীপক মজুমদার, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য এ্যাডভোকেট শায়েদীদ গামাল লিপু, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আমিনুল ইসলাম রিপন, কোতয়ালী আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামছুল আলম চৌধুরী প্রমুখ।

     আরো পড়ুন