আজ শনিবার, ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং,সকাল ৭:০৫

ফরিদপুরে আর হেলমেট-হাতুড়ি বাহিনীর স্থান হবে না -শোক সভায় বিপুল ঘোষ

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে শহরের হাসিবুল হাসান লাবলু সড়কে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের বিশাল শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

শুরুতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল সাহা ও পরে সহ-সভাপতি শিল্পপতি মো. শামীম হকের সভাপতিত্বে এই সভায় উপস্থিত ছিলেন ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য এ্যাডঃ শামচুল হক ভোলা মাস্টার, কেন্দ্রীয় আ.লীগ নেতা বাবু বিপুল ঘোষ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডঃ সুবল চন্দ্র সাহা, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামী বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহাম্মদ ক্যাপ্টেন বাবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা কবিরুল আলম মাও, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন, সাবেক অর্থ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান খান, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক মোঃ ফারুক হোসেন, সাবেক সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ফরিদপুর জেলা শাখা ও সাবেক সহ-সভাপতি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটি এবং সাবেক সম্পাদক গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাইফুল আহাদ (সেলিম), আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি খলিফা কামাল উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অমিতাভ বোস, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডঃ বদিউজ্জামান বাবুল, সাবেক শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার মঞ্জুর আলী, কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামচুল আলম চৌধুরী, আওয়ামী লীগ নেতা খন্দকার আশরাফুজ্জামান মুরাদ, যুবলীগ নেতা জাবির শফি দিনারসহ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সভার শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করা হয়। শোক সভা, প্রতিবাদ সভায় পরিণত হয়। হাজার হাজার তৃণমূল নেতাকর্মীরা বৃষ্টি উপেক্ষা করে এই শোক সমাবেশে সমবেত হয়। বাঁধ ভাঙা আ.লীগ নেতাকর্মীদের উত্তাল জনসমুদ্রে নেতাদের মধ্যে কেন্দ্রীয় নেতা বাবু বিপুল ঘোষ বলেন এই ফরিদপুরে শোষণ, নিপিড়ন, লুটপাট হয়েছে। হেলমেটবাহিনী, হাতুড়িবাহিনীর সন্ত্রাসী নৃশংসতায় ফরিদপুর ছিল বাকরুদ্ধ। আজ আমরা মুক্ত। অপশক্তি যত শক্তিশালী হোক তার নিস্তার নেই।

তিনি সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিঃ খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি’র কথা উল্লেখ করে বলেন উনি অযাচিত সম্পদের মালিক হয়েছেন। তার প্রশ্রয়ে লেভী-ফুয়াদ হেলমেটবাহিনী করেছিল। আর রুবেল-বরকত হাতুড়ি বাহিনী করে টেন্ডারবাজী, ভ‚মি দখল থেকে শুরু করে হাজার হাজার কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে দেশের বাহিরে পাচার করেছে।

মন্ত্রীর ভাই বাবর ফরিদপুরকে লুটপাট করে খেয়েছে। চোরের দল দোলন, বাইদা জাহিদ, স্বপন পাল, অনিমেষসহ চারজন ইউ,পি চেয়ারম্যান মহা দুর্নীতিবাজ। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ফরিদপুর আজ নিঃশ্বাস নিতে শুরু করেছে। আজকের এই প্রতিবাদ সভায় হাজার হাজার নেতাকর্মীর উপস্থিতি বলে দেয় সমবেত ঐক্য কি পরিস্থিতি তৈরী করতে পারে?

শোক সভার সভাপতি শামীম হক বলেন, যারা লুটপাট করেছে, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের হামলা করেছে, বঞ্চিত করেছে, তাদের ক্ষমা নেই। স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি আজ জেগে উঠেছে। দুবৃত্তরা পালাবার পথ পাবে না। সভা শেষে সকলের মধ্যে উন্নত খাবার বিতরণ করা হয়।

     আরো পড়ুন