আজ মঙ্গলবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,রাত ৯:৪৩

ফরিদপুরে ঈদগাহের জমি দখল করে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে বসতবাড়ী নির্মাণ করার অভিযোগ

রবিউল হাসান রাজিবঃ ফরিদপুর সদর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নের তাম্বুলখানা গ্রামের মধ্য পাড়ায় ঈদগাহে দান করা জমি দখল করে বসতবাড়ি নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে ঈদগাহের ৫৯ শতাংশ জমির এখন মাত্র ১৪ শতাংশ জমি অবশিষ্ট আছে বলে জানা গেছে। এই জমির উপর আদালতের ১৪৪ ধারা জারি থাকলেও তা অমান্য করে বসতঘর তৈরি করছে একটি পক্ষ।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় ৫০/৬০ বছর পুর্বে সোলেমান খাতুন নামে এক মহিলা ঈদগাহের জন্য এই ৫৯ শতাংশ জমি দান করেন। কিন্তু বিভিন্ন দখলদারের কারণে এই জমির খুব অল্পই অবশিষ্ট রয়েছে।

মামলার বাদী ঈদগাহ কমিটির সহ-সম্পাদক আঃ করিম অভিযোগ করে বলেন ঈদগাহে দান করা ৫৯ শতাংশ জমির মধ্যে বর্তমানে ১৪ শতাংশ জমি ঈদগাহের জন্য অবশিষ্ট রয়েছে। বাকি জমি আশপাশে বাড়ি তৈরি করে থাকা লোকজন জবরদখল করে রয়েছে। কিছু বলতে গেলে বলে আমাদের ক্রয় করা জমি, কেউ বলে পৈত্রিক জমি। ঈদগাহের জমি উদ্ধার করতে এই মামলা দায়ের করেছি।

এদিকে বিবাদী অবঃ সার্জেন্ট আবু সাঈদ বলেন খরিদসূত্রে পাওয়া আমার জমিতে কয়েক বছর বসতবাড়ী করে আছি। বর্তমানে পাকা বাড়ি তৈরি করার জন্য ভিম তৈরি করা হয়েছে এর মধ্যে বাদীর করা অভিযোগে আদালত ১৪৪ ধারা জারী করেছে। যে কারণে কাজ বন্ধ রয়েছে। তবে আমার বাড়ি তৈরির জন্য ক্রয়কৃত মালামালের যে ক্ষতি হচ্ছে তার দ্বায় কে নিবে? আমি দীর্ঘদিন যাবত বসতি হিসেবে রয়েছি, এখন ওনারা মামলা করেছে। এ দিকে বসতঘর তৈরি করার জন্য পাকা ভবনের জন্য বেজ ঢালাই করে ভিম করা হয়েছে মাত্র। ঈদগাহ কমিটির একাংশের দাবি জায়গা ঈদগার। ক্রয়কৃত মালিকের দাবি এ জায়গায় ৫/৬ বছর যাবত ঘর করে আছেন। বর্তমানে পাকা ভবনের জন্য কাজ শুরু করার সময় স্থানীয় পক্ষ আদালতে অভিযোগ করে।

ঈদগাহের বর্তমান কমিটির সভাপতি ও কৈজুরী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ মামুনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মামলার বিষয়ে আমার কিছু জানা নেই। তবে শুনেছি এই ঈদগাহসহ পাশের জমি নিয়ে ১৪৪ ধারা জারী করা হয়েছে। যে বিষয়টি নিয়ে সমস্যা সেই জমির উপরে ২০/২৫ বছর যাবত বসতবাড়ি করে আসছে। ঈদগাহের যে ১৪ শতাংশ জমি তা ঠিকই আছে। কেউ কেউ বলছেন এ জমি পল্লী কবি জসিমউদদীন এর দাদী ঈদগাহের জন্য দান করেছেন। এ বিষয়ে পল্লী কবি জসিমউদদীনের বড় ছেলে এখানে এসে জমি তাদের নয় বলে উল্লেখ করেছেন। তবে মামলার বাদীপক্ষ কেন যে জায়গাটি নিয়ে ঝামেলা করতেছে তা আমার বোধগম্য নয়।

     আরো পড়ুন