আজ মঙ্গলবার, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ , ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,রাত ৮:৩৬

ফরিদপুরে মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ফরিদপুরে স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া আশ্বাসের বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন করেছে।
বুধবার সকালে ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সামনে মুজিব সড়কে প্রায় ঘন্টাব্যাপী এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে স্বেচ্ছাসেবী মেডিকেল টেকনোলজিস্ট মোঃ আকতার হোসেন, মোঃ ইফতে খায়রুল মামুন
মোঃ দিদারুল ইসলাম, মোঃ শাহিদুল ইসলাম,মোঃ জসীম উদ্দিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
এ সময় বক্তারা বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর যখন রোগীদের নমুনা সংগ্রহকরে পরীা করা শুরু হলো তখন এই মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের সংকট দেখা দেয়। তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে দেশ ও দশের স্বার্থে আমরা মেডিকাল টেকনোলজিস্টরা স্বেচ্ছায় করোনার নমুনা সংগ্রহ আত্মনিযয়োগ করি। এই কাজে আমাদের ছিলোনা কোন টিএ, ডিএ ছিলোনা কোন বেতন ভাতা। আমরা নিজেদের খরচে এসব কাজ করেছি। যারা পিসিআর ল্যাবে কাজ করেছে তারা সাতদিন কাজ করার পর চৌদ্দদিন কোয়ারেন্টাইনে থেকেছে। কিন্তু আমরা তাও থাকতে পারিনি। দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে স্বেচ্ছাসেবী এসকল মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের অবদানে খুশি হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্থায়ীভাবে নিয়োগের আশ্বাস দিয়েছিলেন। ইতোমধ্যে মহামান্য রাষ্ট্র্রপতির নির্বাহী আদেশে পরপর দুই ধাপে বেশ কিছু মেডিকেল টেকনোলজিস্ট নিয়োগ দেওয়া হলেও ফরিদপুরের স্বেচ্ছাসেবী এই মেডিকেল টেকনোলজিস্টরা এখনো অবহেলিত রয়েছে। আমাদের মধ্যে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল তারা তখন সরকারি বা বেসরকারি কোন প্রতিষ্ঠান থেকেই কোন প্রকার প্রনোদণা পায়নি। পান্তরে সরকারি কোন কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হলে তারা সরকারি সকল সুবিধা পেয়েছেন। সরকারি কর্মকর্তারা সকল সুবিধা পাবেন এটাই স্বাভাবিক কিন্তু আমরা কেন এত অবহেলিত থাকবো। করোনার নমুনা সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত থাকায় আমাদেরকে কোন কিনিক চাকরি দিচ্ছে না। যারা আগে সংসারের ব্যায় বহন করতো এখন তারা সংসারের বোঝা হয়ে গেছে। আমাদের এখন বেচে থাকাটা কঠিন হয়ে পরেছে। আজ যদি সরকার এ সকল স্বেচ্ছাসেবীদের দায়িত্ব রাষ্ট্রীয় ভাবে না নেয় তাহলে আমাদের দুঃখকষ্টের কোন সীমা থাকবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের একটাই দাবী তিনি যে আশ্বাস দিয়েছেন তা যেন অতিদ্রুত বাস্তবায়ন করে স্বেচ্ছাসেবী এই মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের সুন্দরভাবে বাঁচতে সাহায্য করবেন।

     আরো পড়ুন