Spread the love

মিঠুন গোস্বামী, রাজবাড়ী : রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া ইউনিয়ন দিয়ে বয়ে চলা গড়াই নদীতে দীর্ঘ দিন ধরে চলছে ভাঙ্গন। যার ফলে নদী পারের মানুষের ঘর বাড়ি ফসলি গ্রাস করে নিচ্ছে গড়াই নদী।
তবে এই গড়াই নদীর ভাঙ্গন রোধে সরকার হাতে নিয়েছে বিভিন্ন প্রকল্প। অনেক প্রকল্পের মধ্যে সনাতনী পদ্ধতির বাঁশের বেড়া প্রকল্প ইতিমধ্যে আস্থা অর্জন করেছে নদী পারের মানুষের।
ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে গত ৩ বছর যাবত চলছে বাঁশের বেড়া প্রকল্পের কাজ। ফরিদপুর নদী গবেষণা ইনস্টিটিউট এ প্রকল্প হাতে নিয়েছে।
ফরিদপুর নদী গবেষণা ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়, এটি একটি পাইলট প্রকল্প।এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে পরিবর্তন হবে নদীর গতিপথ, কমবে ভাঙন, বাড়বে ফসলি জমি।
তারা জানান, পরীক্ষামূলকভাবে এ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। ২৫ ফুট লম্বা বাঁশের বেড়া ১৩ ফুট মাটির নিচে এবং ১২ ফুট মাটির উপরে থাকবে। এতে করে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হবে। যে কারণে ভাঙনের সৃষ্টি হবে না।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের জামসাপুর এলাকায় নদী ভাঙন রোধে দেড় কিলোমিটার এলাকায় বাঁশের বেড়া প্রকল্পটিতে ব্যয় ধরা হয় ৭৫ লাখ টাকা। ওই কাজটি সুফল বয়ে আনার পর গত বছরও নারুয়া খেয়াঘাট এলাকায় ৫শত মিটার কাজ করা হয়। বাঁশের বেড়া প্রকল্পের এ কাজটি ভাঙ্গন প্রতিরোধে ব্যাপক ভাবে সুফল বয়ে আনার ফলে চলতি বছর নারুয়া গ্রাম এলাকায় ৯৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২১০০ মিটার কাজ করছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স নুর কনস্ট্রাকশন।
তবে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বাঁশের বেড়া প্রকল্পেরের কাজ চলছে।তবে পানি বৃদ্ধির কারণে কাজ করতে কিছুটা সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে শ্রমিকদের। শ্রমিকদের মাধ্যমে জানাযায় প্রতিটি বেড়ার দৈর্ঘ্য যতটুকু হওয়ার কথা সেটি করা সম্ভব হচ্ছে না পানি বৃদ্ধির কারণে।
এলাকা বাসির দাবী নারুয়া ইউনিয়নের প্রতিটি ঝুঁকি পূর্ণ যাইগাতে এই রকম বাঁশের বেড়া তৈরি করা হোক।

Spread the love