Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান উল্লাহ বাবলু, আশাশুনি ব্যুরো : করােনা ভাইরাসের ২য় ঢেউয়ের ছােবলে আশাশুনির সকল ইউনিয়ন এখন রােগিতে ভরতে শুরু করেছে। ২য় ঢেউয়ে এ পর্যন্ত ১০০ জন করােনা পজেটিভ রিপাের্ট আসলেও লকডাউন ঘােষণা করার পর প্রশাসনের কঠোর নজরদারি এড়িয়ে সাধারণ মানুষ যত্রতত্র চলাফেলার ফলে প্রতিদিন রােগির সংখ্যা বেড়েই চলেছে। আশাশুনিতে নতুন করে গত ১৩ জুন ১১ জনের করােনা পজেটিভ রিপাের্ট এসেছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানাগেছে, রবিবার (১৩ জুন) উপজেলার ১১ জনের করােনা পজেটিভ রিপাের্ট এসেছে। তারা হলেন, মােস্তাফিজুর রহমান (৭৩) কুল্যা, অগষ্টিক মন্ডল (২৮) বড়দল, রজাউল (৫২) বুধহাটা, ববিতা (২৮) শ্বেতপুর, তৈয়েবুর (৪৪) বাটরা, শাহনারা (৫০) শ্বেতপুর, পরিতােষ (৪৮) কাটাখালী (শাভনালী), এস কে মামুন (৬৯) আশাশুনি, শাহারুজ্জামান (৮০) আশাশুনি, সনজিদা (২৩) ও শম্পা (২৫) মহিষাডাঙ্গা। এনিয়ে আশাশুনি উপজেলায় ১৪১ জনের করােনা পজেটিভ রিপাের্ট এসেছে। যার মধ্য ৪১ জন গত বছরের এবং ১০০ জন চলতি বছর ২য় ঢেউয়ে সংক্রমিত হয়েছে।
আশাশুনি উপজেলায় ১৩০ জন সংক্রমিতদের মধ্য সবচেয়ে বেশী সংক্রমিত হয়েছে শােভনালী ইউনিয়ন এবং বুধহাটা ইউনিয়ন। শােভনালী ইউনিয়নে ৩৩ জন, বুধহাটা ইউনিয়নে ২৫ জন, কুল্যা ইউনিয়নে ৮ জন, দরগাহপুর ইউনিয়নে ২ জন, বড়দল ইউনিয়নে ৪ জন, আশাশুনি সদরে ১৫ জন, শ্রীউলা ইউনিয়নে ৪ জন, খাজরা ইউনিয়নে ২ জন, আনুলিয়া ইউনিয়নে ১ জন, প্রতাপনগর ইউনিয়নে ২ জন ও কাদাকাটি ইউনিয়নে ৪ জন।
উপজেলার বাশারত হাসান (৫৫), আঃ আলিম (৬০), সহকারী শিক্ষক আব্দুল মজিদ করােনা পজেটিভ হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। এছাড়া উজ্জল চৌকিদারের মা পার্বতী রানী রাহা (৬০), বাক্কার (৪৫), আনায়ারা খাতুন করােনা উপসর্গ নিয়ে মারা যায়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •