Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কলাপাড়া প্রতিনিধি: কুয়াকাটা খানাবাদ গ্রামে লাকী আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধু বাবার বাড়িতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে টিনের ঘরের রুয়ার সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে ওই নারীর মা-বাবা দাবি করেছেন। ঘটনার পরপরই আশেপাশের লোকজনের সহায়তায় কুয়াকাটা ২০ শয্যা হাসপাতালে আনা হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে লাকী আকতারকে। খবর পেয়ে মহিপুর থানা পুলিশ হাসপাতালে এসে লাশের সুরতহাল সম্পন্ন করে ময়না তদন্তের জন্য বুধবার সকালে পটুয়াখালী মর্গে প্রেরণ করে। মহিপুর থানার পুলিশ ও হতভাগ্য ওই নারীর পরিবার জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত সোয়া ৮টার দিকে পরিবারের লোকজন রাতের খাবার খাওয়ার জন্য লাকী আক্তারকে খুঁজছিল। ডেকে সাড়া না পেয়ে বড় বোন খুশি আক্তার ঘরের দোতলায় গিয়ে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় ঝুলন্ত দেখতে পায়। এসময় তার ডাকচিৎকারে ঘরের অন্যান্যরা এবং আশেপাশের লোকজন ছুটে আসে। এরপর দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যায়। জানা গেছে , ওই গ্রামের আঃ হক মুন্সির মেয়ে মৃত লাকী আক্তারের গত ৬ মাস
আগে বিয়ে হয় একই উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের আক্কেলপুর গ্রামের মোকলেচ
কাজীর ছেলে ফোরকানের সাথে। বিয়ের পর থেকেই যৌতুক চাওয়া নিয়ে দ্বন্দ চলছিল। গত প্রায় একমাস আগে স্বামীর বাড়ি থেকে এসে লাকী আক্তার বাবার বাড়িতে অবস্থান নেয়। লাকী আক্তারের বাবা আঃ হক মুন্সী বলেন, ‘আমার মেয়ে স্বামীর বাড়ির যৌতুকের চাপ নিতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে।’ মহিপুর থানার ওসি মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক তথ্য প্রমাণে লাকী আক্তার আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা করছি। লাশ ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে পাঠিয়েছি।


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •