Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রবিউল হাসান রাজিবঃ ফরিদপুরে সপ্তম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ফরিদপুর জেলা সদরের ডিগ্রিরচর ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
৯ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে কোতয়ালী থানায় এক প্রেস ব্রিফিং এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) জামাল পাশা।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, ফরিদপুর সদরের আইজুদ্দিন ডাঙ্গী এলাকার শুকুর শেখের ছেলে আকাশ শেখ (১৮), সালাম শেখের ছেলে মো. রুমি শেখ (১৭) ও সদরের পূর্বডাঙ্গী এলাকার আব্দুল রাজ্জাক শেখের ছেলে শিপন শেখ (১৯)।
প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয় গত ৭ই নভেম্বর রাত আনুমানিক ১০টা থেকে ১১.৩০টার মধ্যে কোতোয়ালি থানাধীন চট্টপোড়াকান্দি সুলতান নগর ডাঙ্গা গ্রামের শেখ কামাল (৩৭) এর শিশু কন্যা (১২) রাতে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার জন্য বাইরে গেলে আসামি আকাশ শেখ (১৮) ও অজ্ঞাত নামা তিন-চারজন ভিকটিম উক্ত কিশোরীকে পিছন থেকে গিয়ে জোরপূর্বক মুখ চেপে ধরে ইজিবাইকে করে পার্শ্ববর্তী চরমাধবদিয়া ইউনিয়ন এর আছির উদ্দিন মুন্সী ডাঙ্গী এলাকায় নিকলী হাওর এর জনৈক ইদ্রিস শেখের রসুন ক্ষেতের স্যালো মেশিন ঘরে নিয়ে আসামীরা পালাক্রমে কিশোরীকে ধর্ষণ করেন।
ধর্ষণের পর আসামিরা উক্ত কিশোরীকে মুমূর্ষ অবস্থায় ফাঁকা মাঠের মধ্যে ফেলে চলে যায়। পরে কিশোরীটি কিছুটা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে তার মায়ের কাছে সব ঘটনা বলে। পরবর্তীতে কিশোরীর মা আত্মীয়স্বজনদের সহায়তায় কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল হাসপাতাল ভর্তি করেন।
এ ঘটনায় কিশোরীর পিতা বাদী হয়ে ৮ নভেম্বর কোতোয়ালি থানায় এজাহার দাখিল করলে মামলা নং ২২/১১ নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ (সংশো/০৩ ) এর ৭/৯/(৩)/৩০ রুজু হয়।
মামলা রুজু হওয়ার ৪ ঘন্টার মধ্যে দলের প্রধান আসামি আকাশকে টেপাখোলা বেরিবাঁধ হতে গ্রেফতার করে কোতয়ালী থানা পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে।
পরে আসামি আকাশের দেয়া তথ্য অনুযায়ী আসামি রনি শেখ (১৮) পিতা আব্দুস সালাম শেখ আইজুদ্দিন মাতুব্বরের ডাঙ্গী ও মোহাম্মদ শিপন শেখ (১৯) পিতা মোহাম্মদ রাজ্জাক পূর্ব ডাঙ্গী কে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানানো হয়।
প্রেস ব্রিফিং এ অতিরিক্ত পরলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার, কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এম এ জলিল, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের ও ফরিদপুরে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •