Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মিঠুন গোস্বামী, রাজবাড়ীঃ সারাদেশে চলছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন কে কেন্দ্র করে দলের মধ্যে সৃষ্টি হচ্ছে বিভেদ। কেন্দ্রের নিদ্দেশ অমান্য করে চেয়ারম্যান প্রার্থী হচ্ছেন আওয়ামীলীগের একাধিক নেতাকর্মী।

আগামী ২৮ নভেম্বর রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার ৭ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে রয়েছে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী। গত ১১ নভেম্বর মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন থাকলেও বিদ্রোহীরা প্রত্যাহার করেন নাই। ফলে উপজেলা আওয়ামীলীগ প্রতিটি ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থীদের কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) সকালে উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম সুফি এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বহিষ্কারা হলেন,বালিয়াকান্দি সদর ইউনিয়নের সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী (মোটরসাইকেল) আলমগীর হোসেন, জংগল ইউনিয়নের সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী (আনারস) ও সাবেক চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ,নারুয়া ইউনিয়নের সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী(আনারস) ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, নবাবপুর ইউনিয়নের ২ সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী, ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সহ-সভাপতি আলমগীর হোসেন বাদশা (আনারস) ও ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হোসেন আলী(ঘোড়া) , বহরপুর ইউনিয়নের সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী খলিলুর রহমান(মোটরসাইকেল), ইসলামপুর ইউনিয়নের সতন্ত্র (বিদ্রোহী) চেয়ারম্যান প্রার্থী আহম্মদ আলী মাস্টার (আনারস)।

বহিষ্কার হওয়া নেতাদের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম সুফি বলেন, দল বিচার-বিবেচনা করে প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে। যাঁরা দলীয় আদেশ অমান্য করেছেন, তাঁদের বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের গঠনতন্ত্র ৪৭(১১) ধারা মোতাবেক প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত চিঠিও তাঁদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

তবে বহিষ্কার হওয়া নেতাদের মধ্যে রয়েছে ক্ষোভ। তারা বলছে তৃনমূলের কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই কেন্দ্র একতরফা ভাবে মনোনয়ন দিয়েছে। আবার অনেকেই বলছে জনগণের সাথে নিয়ে রাজনীতি করতে হয়, তাই জনগনের অনুরোধে প্রার্থী হয়েছি।


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •